ফখরুল, মওদুদ, মঈন, নজরুল, আব্বাস, গয়েশ্বর, খসরুর বিরুদ্ধে মামলা

0
101
সরকারবিরোধী উসকানিমূলক বক্তব্য এবং পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ৫৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছে পুলিশ। আজ সোমবার হাতিরঝিল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শরিফুল ইসলাম বাদী হয়ে এ মামলা করেন। এই মামলার সাত আসামিকে এক দিন করে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

মামলায় দলটির কেন্দ্রীয় নেতা বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী ও যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমানকেও আসামি করা হয়েছে।

মামলায় পুলিশ বলছে, বিএনপি কারাবন্দী চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে গতকাল সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করে। সেখানে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা সরকারবিরোধী উসকানিমূলক বক্তব্য দেন।

মামলায় বলা হয়, বিএনপির এসব নেতার এমন বক্তব্যের পর গতকাল রাত ৮টার দিকে হাতিরঝিল থানার মগবাজার রেলগেট এলাকায় বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠন ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল এবং জামায়াতের ছাত্রশিবিরের ৭০ থেকে ৮০ জন নেতা–কর্মী জড়ো হন। তাঁরা রাস্তায় যান চলাচলে বাধা দেন। পুলিশ জড়ো হওয়া নেতা–কর্মীদের সড়ক অবরোধ না করতে অনুরোধ করে। কিন্তু পুলিশের অনুরোধ উপেক্ষা করে তাঁরা পুলিশকেই হত্যার উদ্দ্যেশ্যে ইটপাটকেল ছুড়তে শুরু করেন। সেখানে দুটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা এবং একটি বাস ভাঙচুর করেন। প্রতিরোধের চেষ্টা করলে তাঁরা লাঠি দিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের মারধর শুরু করেন, ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটান। মামলায় বলা হয়, ভাঙচুর করা গাড়িগুলো আত্মরক্ষার্থে দ্রুত চলে যাওয়ায় গাড়ির নম্বর সংগ্রহ করতে পারেনি পুলিশ।

(বাঁ থেকে) মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী(বাঁ থেকে) মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী পুলিশ বলছে, ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের সাত নেতাকে গ্রেপ্তার করে। তাঁরা হলেন কুমিল্লা জেলা বিএনপির সহসভাপতি মোবাশ্বের আলম ভূঁইয়া (৪৮), বাড্ডা যুবদলের ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন (৪০), গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ৪৮ নম্বর ওয়ার্ডের কমিশনার শফিউদ্দিন (৪৩), গুলশান ১৮ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি রাশেদ বিন সোলায়মান (৪৪), ভালুকা থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন (৫৩), বাড্ডার ৪১ নম্বর ওয়ার্ড যুবদলের সভাপতি সামছুল হক (৪০), লাঙ্গলকোট থানা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক শিহাব খন্দকার (৩৫)।

আদালত সূত্র বলছে, গ্রেপ্তার এই সাতজনকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে (সিএমএম) হাজির করে হাতিরঝিল থানা-পুলিশ তাঁদের সাত দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে। শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেকের ১ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
আদালতকে পুলিশ প্রতিবেদন দিয়ে বলেছে, নাশকতাকারীদের ছোড়া ইটের আঘাতে হাতিরঝিল থানার সহকারী উপপরিদর্শকসহ (এএসআই) তিন পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হয়েছেন। তাঁদের রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।
আলামত হিসেবে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৫টি বাঁশের লাঠি, দেড় লিটার পেট্রল, বিস্ফোরিত ককটেলের বোমার অংশবিশেষ ও ভাঙা কাচের টুকরা জব্দ করেছে।

source:prothomalo.com

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here